I know, blogging is risky. But for blogging, I couldn’t think of my own life would be risky.
Last six months ago, on my “look back” blog, about Yaba, I did a report.
For this blogging, some people plan to kill me. Those guys, the government was. As a result of the people in the area, I do not get support.
Those boys, there, attack me twice in a row. I finally escaped home.
Police station is against me. Me, the police continue to be harassed. In my name, at that time, cybercrime cases are being prepared.
Every night, the police used to come to our house. My father, a Freedom Fighter.
That’s when I, along with the elites, made contact. But the result is zero.
I also contact the Web site of the Member of Parliament in my area.
I told him,

Sir, should I go to deported? If I were deported you would be defamed.
He did not answer my question.

I started to wait.
We, the people of each family, suffered from depression.
Right then, I was preparing for asylum in another country.
Next, my Lawyer, Advocate Hamidul Islam Dulal. My acquaintance with him, for almost twenty years. With his legal assistance, I was in safe
Or, though, those boys (who put me in danger) have become like worms.

Readers,
I’m free from danger. This is where I consider the police a friend. But I do not trust the enemy. Because,
The enemy has been with me forever.
Everyone should take care of yourself.
January 18.2020
Rudro M al-Amin

আমি জানি, ব্লগিং করা রিস্কি। কিন্ত ব্লগিং এর জন্য, আমার নিজের লাইফ রিস্কি হবে, তাহা ভাবতে পারিনি।
গত ছয় মাস আগে,আমার “ফিরে দেখা”ব্লগে, ইয়াবা বিষয় নিয়ে, একটি রিপোর্ট করি।
এই ব্লগিং জন্য, কিছু লোকজন আমাকে মেরে ফেলার পরিক্ল্পনা করে। ঐ ছেলে গুলো, সরকারদলীয় ছিল। ফলে এলাকার লোকজনের, আমি সাপোর্ট পাই না।
ঐ ছেলেগুলো, তখুন আমাকে পরপর দুইবার এট্যাক করে। আমি শেষমেষ বাড়ি থেকে পালাই।
থানাপুলিশও আমার বিপক্ষে। আমি, পুলিশি হয়রানি হতে থাকি। আমার নামে, সেই সময়,সাইবার ক্রাইম মামলার প্রস্তুতি চলছে।
প্রতি রাতে, পুলিশ আমাদের বাড়ি আসতো।আমার বাবা, ফ্রিডম ফাইটার।হয়তো এর জন্যই, পুলিশ তার সাথে খারাপ আচরন করেনি।
ঐ সময় আমি, এলিটদের সাথে, যোগাযোগ করি। কিন্ত ফলাফল জিরো।
আমি, আমার এলাকার, মেম্বার অব পার্লামেন্টের, ওয়েব সাইটেও যোগাযোগ করি।
আমি তাকে বলেছিলাম,

স্যার, আমি কি নির্বাসনে যাবো? আমি নির্বাসন হলে, আপনার কিন্ত মানহানি হবে।
তিনি আমার প্রশ্নের উত্তর দেননি।

আমি অপেক্ষা করতে লাগলাম।
আমাদের, প্রতিটি পরিবারের লোকজন, হতাশায় ভূগতে লাগল।
ঠিক সেই সময়,আমি অন্য দেশে আশ্রয়ের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম।
এরপর, আমার ল-ইয়ার, এডভোকেট হামিদুল ইসলাম দুলাল ভাই। তার সাথে আমার পরিচয়, প্রায় বিশ বছর ধরে। তাঁর আইনি সহযোগীতায়, আমি বিপদমুক্ত হই।
যদিও বা, ঐ ছেলেগুলো (যারা আমাকে বিপদে ফেলেছিল) এখুন নর্দমার কীটের মত হয়ে গেছে।

পাঠকগণ,
আমি এখুন বিপদমুক্ত। এখুন আমি পুলিশকেও বন্ধু মনে করি। কিন্তু শত্রুকে আমি বিশ্বাস করি না। কারন,
শত্রু আমার নিকট চিরদিনই শক্রু।
সবাই নিজের প্রতি খেয়াল রাখবেন।
জানুয়ারি 18.2020
রুদ্র ম আল-আমিন