রুদ্র ম আল-আমিন এর ছোটগল্প
(পর্ব-০৫)
“আর্থার বেন”

আর্থার বেন প্রশাসনিক ব্যাবস্হা ভেংগে পরিবর্তনের আভাস দিলেন। তাঁর জমজ ভাইকে দায়িত্ব দিলেন কমান্ডো পাওয়ার।
জ্যাক বেন হুংকার ছুড়লেন,
ক্যাথলিকরাই একমাত্র মানু্ষ আর বাদ বাকি সকল হলো নর্দমার কীট। সভ্য সমাজে কীটের কোন স্থান নাই। তোমরা ক্যাথলিকদে বশ্যতা স্বীকার কর নইলে ভয়ানক পরিনতি ভোগ করতে হবে।
পরদিনই বন্ধ হয়ে গেল সারা দুনিয়ার নেটওয়ার্কিং ব্যাবস্থা। এশিয়া ও আফ্রিকান সাধারন মানু্ষ আতংকগ্রস্থ হয়ে গেল।
পাঠক, (মনে করুন এই ঘটনাটির সময়কাল ২১১২)
সোস্যাল নেট থেকে শুরু হয়ে অকেজো হয়ে গেল রাস্তাঘাটের গাড়িচলাচল।
এশিয়ার শক্তিধর নেতারা প্রস্তুত হলো তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের। আনবিক বোমার ব্যাবহারে মরিয়া প্রায় প্রতিটি দেশ।
কদিনেই সমস্ত রাষ্ট্রযনত্র বিকল হয়ে গেছে সাথারন লোকজন গর্ত খুরতে লাগল মাটির নিচে। একটা চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে সারা দুনিয়ায়। ইউরোপ, আমেরিকা ও এশিয়ান দুূবল লোকদের একটাই প্রশ্ন, আমরা কি বেচে থাকব?
বাংলাদেশ এ এক আজব দেশ,
বহুজাতিক দেশটি যে যার ধর্ম নিয়ে ব্যাস্ত।
বিত্তবানেরা ছুটে গেল সমুদ্রের ধারে নিজেদের যদি সমাধি সলিল ঘটে তবে যেন তা সেখানেই ঘটে।
ঠিক তাঁর থেকে তিনদিন পর বারুদের গন্ধে ভরে গেল আকাশ বাতাস রাতের আধারে ইউরোপ আমেরিকার দেশগুলো ঝাপিয়ে পড়ল নিরস্র মানুষের উপর। মাত্র দু ঘন্টায় দশ হাজারেরও অধিক আনবিক বোমার বিষফোড়ন ঘটানো হলো। বায়ুতে মিশে গেল কার্বনিকঅ্যাসিড, ভুকম্পনে থরথর করে কাপতে লাগল পুরো দেশ, অট্রালিকা মাটিতে লুটিয়ে পরতে লাগল। বৃষ্টির সাথে মিশে গেল জলোচ্ছাস, সমুদ্রের পানি পন্চাশ ফুট উচ্চতায় ধুয়ে দিয়ে গেল পুরো দেশ।
সমুদ্রের তলদেশে হারিয়ে যেতে লাগল এণিয়া ও আফ্রিকা সহ মধ্যপ্রাচ্য দ্বীপরাষ্ট্রে পরিনত হয়ে গেল মুহুর্তে, সেই সাথে বেচে থাকা মানুষগুলো হয়ে গেল বিকলাঙ্গ।
একটা প্রলয় ঘটে গেল সারা দুনিয়ায়।ইউরোপ আমেরিকার মানুষেরাও রোগান্বিত হতে লাগল। দীরে দীরে সাধারন মানু্ষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পারতে লাগল। বেচে থাকা মানু্ষ গুলোর পচন ধরতে লাগল আনবিক বোমার তেজস্বকৃীয়তায়।
প্রাসাদ ভেংগে ততক্ষনে টুকরো টুকরো হয়ে গেছে সারা দুনিয়ায়।
যুদ্ধের যবনিকাপাত ঘটল কিন্তু আর্থার বেন বেচে রইলেন।
নিরস্র মানুষেরা আর্থার বেন এর উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠলেন। কিন্তু কারো কোন কিছুই করবার রইল না।শুরু হইল বেন তন্ত্র কেড়ে নেওয়া হলো বাকস্বাধীনতা। চাপিয়ে দেওয়া হলো বল প্রয়োগ। রাষ্ট্রযন্ত্র হয়ে গেল ধর্মতন্ত্র। শুরু হলো নতুন বিশ্বের পথচলা। ক্যাথলিক ঘিরে ফেলল সারা দুনিয়ায়,,,,, মানুষের আই ওয়াশ করে দিল আর্থার বেন।এরপর চর দখল, কারো কিচ্ছু করার নেই,এই অভাগা মানুষগুলোকে শোনাতে লাগল,
“জন্ম থেকে মৃত্যু পাশে আছে আর্থার বেন”
” পাঠক, এটা কি তবে ধর্ম নয়?
(যবনিকা)