“নন্দিনী ও আবির”
রুদ্র ম আল-আমিন

নন্দিনী!
হঠাৎ আকাশে মেঘ দেখেছো,,,
দেখ দে্খ এই চারপাশ অন্ধকার হয়ে গেল,
কেন এমন হচছে, আমি কিছু বুঝতে পারছিনা।

আবির!
তুমি ভয় পাচছ?

নন্দিনী!
না মানে সেরকমই কিছু আভাশ
এই সবুজের মাঠে তখুন আমি একা
হঠাৎ তোমায় পেলাম
আর কিচছু চাই না তুমি সব দিয়েছ আমায়।
আমি কিন্ত অপেক্ষায় থাকবো?

আবির!
চোখের জল ফেলো না, মাত্র তো কটা দিন,
দেখতে দেখতে বেশ কেটে যাবে।

নন্দিনী!
দুরেরপথ রেল ভ্রমন খুব আরামদায়ক, শিলিগুরি পৌছেই ফোন করো,,
জানো আমি তোমায় খুব মিস করবো।

আবির!
আমার যেতে ইচছে করে না
ওখানে আপন বলতে কেউ নেই,,,,
থাকার কোথায় থাকার মত কোন যায়গাও নেই???

নন্দিনী!
৩০২/৫ নেতাজি লেন , পুরোনো বাড়ি,,,
আমার বন্ধু খুব ভালো মানুষ
গল্প নয় সত্যি বলছি , অনেককাল থেকেছি একসাথে
আমি আর ও, ঢাকার মতিঝিলে।

আবির!
বিনয় দার কথা বলছো ? তাঁর ঘরে কি করে থাকবো বলো?

নন্দিনী!
ওসব তুমি ভেবো না,,
দোতলায় একটা কামরা, তোমার জন্য বরাদ্দ।

আবির!
রেলগাড়ি নটা বেজে পাঁচ
তুমিও চলো স্টেশন থেকে ফিরবে,,,
তুমি বাড়ি ফিরতে ফিরতে আমি তখুন অনেকদুর।

নন্দিনী!
এ কেমন কথা বলছো,,
যতদূর যাও না কেন
মনে ক’রো আমি আছি, আমি থাকবো,,

আবির!
চলো চলো আর সময় নেই।

নন্দিনী!
এই রে বারিবর্ষণ শুরু হয়ে গেল,
ভিজতে ভিজতে একাকার হয়ে যাবো
কি যে করি
ছাতাটারও বাট ভাংগা এখন উপায়?
(চলবে)
May 12.201