রুদ্র ম আল-আমিন এর উপন্যাস
(পর্ব-২৪)
” একজন মুক্তিযোদ্ধা ”
রতন দা রমার ছোট কাকা। পাটনী যিনি খেয়াঘাটের লোকজন কে বোঝাতে ছিলেন । তার বাড়িও মাঝি পাড়ায় রতন দার বৌদি কে আগে থেকেই চেনা জানা।
লোকজন দাহ্ কথা জিজ্ঞেস করতেই বলল যে,,, দুপুরের আগেই।
পাটনী বৌদিকে ডাকল যে ডিংগা নৌকায় উঠে আসতে।
বিথী ও রমা কান্নারত অবস্থায় মাকে নৌকায় তুলল। মিনিট দশেকের মধ্যেই ওপারে পৌছাল।
এই ঘাটের নদীর প্রস্থ মাত্র পাচশ গজের মত। তবে নদিতে প্রচুর স্রোতের কারনে
একটু সময় লাগে চৈক্রটমাসে নদি সুকিয়ে গেলে লোকজন হেটেই পার হয়ে থাকে।
সয়া স্কুলের গেটে পৌছতেই রমার মা আবারও জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।
স্কুল গেট থেকে একটু দুরে মাঝিবাড়ি,,
সাথে সাথে ৈহ চৈ পরে যায়।
পাশের বাড়ি থেকে কে যে নো জল ছিটিয়ে দিল, জ্ঞান ফিরতেই ধরাধরি করে রিয়ে গেল মাঝিবাড়ি,, রতনদা চিৎকার করে কাঁদছিল।
রমাও অনেকটা পাগলের মত কাদছে। এই বুঝি তার মায়ো মারা যাবে।
রতন কাকাকে জরিয়ে ধরে রমা, কাকা কাকা বলে চিৎকার করছে।
আশপাশের বাতাস ভারি হয়ে আাসে।
একটু পরেই নিকটাত্মীয় সবাই চলে আসে
রমার বাবা ঢাকায় আছেন তার জন্য অপেক্ষা করা গেল না।
সকাল খেকেই চটি বই গীতা নিয়ে বয়স্কআ রা পরিতেছিল।
পুরুষেরা ঢোল কেউ কেউ ঢোল খঞ্জর বাজাইয়া ভগমানের উউদ্দেশ্য গান গাহিতেছিল।
বাড়ির আংগিনায় পুরাতন আমগাছ কেটে
লোকজন টুকরো করা শেষ,
ঠাকুর মশাই আসিয়া পরনের কাপড় সমেত কলা গাছের ভেলা (খাট) শব তুলিবার আগে একবার মন্ত্র পাঠ করিলেন। এবং রমার জ্যাঠাইমা কে ধরাধরি করিয়া পায়ের কাছে আনা হল।
বাম পাঢের কুনুি আংগুল দিয়ে সিথীর সিধুর মুছে দিয়েই
খাটিয়ায় শব তুলে ফেলল।

পাঠকগণ,
হিন্দু সমাজের রীতিনীতি একটু ব্যতিক্রমী
এটা যুগে যুগে পটপরিবর্তন ঘটলেও
কিছু কিছু নিয়ম কানুন আজো বিধ্যমান।

আর তাছাড়া এই ধর্ম কোন একক ব্যক্তি
দারা প্রচলিত না,, তবে আপনাদের পছন্দ না হলেও এটা পৃথিবীর প্রাচীনতম ধর্ম।
রতন দা চন্দন কাঠ, ঘি, তামা, সোনা, মাটির হাড়ি নিলেন।
শস্মান ঘাট অবধি যেতে যেতে ্রখুচরো পয়সা রাস্তা ফেলছেন,, কীর্তন গাইলোন
মাঝে মধ্যে,, সমসরে রাম নাম সাতে,,
রাম নাম সাতে বলতে লাগলেন।
চিতায় উঠিয়ে,,
নাক, কান, চোখে তামা,সোনা ছোয়ালো,
ঘি দিয়ে সরীর মাখিয়ে দিয়েই রতন ককে মুখে আগুন দিতে বলল,ঠাকুর মনত্র পরতে লাগল

ওঁ কৃতবাতু দুষকৃতং কর্মং জানতা বাপ্য জানতা,মৃতুকাল বশং প্রাপ্য নরং পথঞচতমাগতম ধর্মাধর্ম সমাযুক্তং লোভমোহ সমাবুতম দহেয়ং সর্বগাত্রনি দিব্যান্ লোকান্ স্ গচছতু ”

মন্ত্র পড়া শেষ হতেই আগুন দাউ দাউ করে জলে উঠল
রমা ও বিথী একটু অদুরে দাড়িয়ে ছিলো।
সবাই চিতার দিকে তাকিয়ে দাহ্ দেখছে, রমা ঘাড় ঘুরিয়ে পিছনের দিকে তাকাতেই দেখল, বদর তার পিছনে দাড়িয়ে দেখেই
বদরকে জরিয়ে ধরে কেঁদে কেদেই বলল
ঃ বদর দা,,, জ্যাঠাই, ,, ,
(চলবে)